অদম্য মেধাবী -দারিদ্রতা ওদের স্বপ্ন পূরনে বাধা

বোয়ালমারী প্রতিনিধি ঃ শত অভাবের মাঝেও ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার রাঙ্গামুলারকান্দী হাজী আব্দুল¬াহ একাডেমি ও বোয়ালমারী জর্জ একাডেমীর তিন ছাত্র এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে তাক লাগিয়ে দিয়েছে। ভালো ফলাফল করেও উচ্চ শিক্ষা নিয়ে শঙ্কায় রয়েছে তারা। ভালো কলেজে ভর্তির সুযোগ নিয়ে হতাশায় রয়েছে অদম্য মেধাবীরা। সেই সঙ্গে উচ্চ শিক্ষার খরচ নিয়েও অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে তারা।

বিশ্বজিত: উপজেলার দাদপুর ইউনিয়নের রাঙ্গামুলারকান্দী হাজী আব্দুল¬াহ একাডেমি থেকে এসএসসি (বিজ্ঞান) বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে বিশ^জিত কুমার মিত্র। সে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনি ও জেএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে বৃত্তি লাভ করেছিল। হতদরিদ্র পরিবারের একমাত্র সন্তান বিশ^জিত অদম্য ইচ্ছা শক্তি, মেধা আর অধ্যবসায়ের মাধ্যমে এসএসসিতে ভাল ফলাফল করেছে। উপজেলার চতুল ইউনিয়নের রাজাপুর গ্রামের মৃত বিজয় মিত্রের একমাত্র সন্তান বিশ^জিত কুমার মিত্র। মাত্র  ৪বছর বয়সে সে তার বাবাকে হারায়। নিজেদের কোন জমিজমা নেই। বাড়িতে ছোট্ট একটি ঘরে মা ছেলের বসবাস। মা লিপি রানী মিত্র অন্যের বাড়ি কাজ করে আর দু-একটা প্রাইভেট পড়িয়ে সংসার চালান। বিশ^জিতের চাচা হোমিও চিকিৎসক দিলীপ কুমার মিত্র তার পড়া লেখার খরচ চালাতেন। পাশাপাশি স্কুলের প্রধান শিক্ষক আইয়ুব আলী মৃধা বিভিন্নভাবে তাকে সহযোগিতা করেছেন। স্কুলে বিনা বেতনে পড়ার সুযোগ করে দিয়েছেন। আইয়ুব আলী বলেন, হতদরিদ্র ঘরের ছেলে বিশ^জিত মেধাবী হওয়ায় আমরা তাকে সহযোগিতা দিয়েছি। আগামীতেও সকলের সহযোগিতায় সে উচ্চ শিক্ষা অর্জন করে মানুষের মতো মানুষ হোক সেই আশির্বাদ করেন তিনি। কিন্ত তার চাচা উচ্চ শিক্ষার খরচ চালাতে পারবেন বলে মনে হয় না। বিশ্বজিত জানায়, তার মৃত বাবার স্বপ্ন ছিল ছেলে ডাক্তার হয়ে মানুষের সেবা করবে। বাবার এ স্বপ্ন পুরনের পথে বিশ^জিতের প্রধান বাধা দারিদ্রতা।

শাকিল-শাকিব: উপজেলার ডোবরা গ্রামের বাসিন্দা মুদি দোকানি লোকমান শেখের দুই ছেলে শাকিল ও শাকিব বোয়ালমারী জর্জ একাডেমী থেকে এসএসসি (বিজ্ঞান) বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে। জেএসসি পরীক্ষাতেও তারা জিপিএ-৫ পেয়ে বৃত্তি লাভ করছিল। শাকিল-শাকিবদের ৯ভাই বোনের সংসার। তাদের বাবা শত অভাবের মধ্যেও ছেলে মেয়েদের লেখাপড়ার খরচ যোগাতে গিয়ে বাড়ির ভিটের জমি বাদে আর যেটুকু জমি ছিল তা বিক্রি করে দিয়েছেন। লোকমান শেখের বড় ছেলে  আব্দুল¬াহ এসএসসিতে ভালো রেজাল্ট করায় একি্রাম ব্যাংকের বৃত্তি লাভ করে। বর্তমানে সে ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের এমবিএর শেষ বর্ষের ছাত্র। শাকিল ভবিষ্যতে ডাক্তার হতে চায় আর শাকিবের ইচ্ছা প্রকৌশলী হওয়া।

Leave a Reply