চীন ছাড়ছে দ. কোরীয় গাড়ি প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানগুলো!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: দক্ষিণ কোরিয়ায় মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা মোতায়েনের সিদ্ধান্তে দূরত্ব বাড়ছে বেইজিং ও সিউল-এর মধ্যে। চীনের বিক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়ার প্রেক্ষিতে দক্ষিণ কোরিয়া বলছে, উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র হামলার আশঙ্কায় ওই প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা স্থাপনের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এ নিয়ে দুই দেশের মধ্যকার দূরত্বের নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যে। এরইমধ্যে চীনা ভূখ-ে নিজেদের পণ্য উৎপাদন থেকে সরে আসার ইঙ্গিত দিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়াভিত্তিক বিশ্বখ্যাত গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলো! সূত্রগুলো বলছে, হুন্দাই মোটর এবং কিয়া মোটরস-এর মতো কোম্পানিগুলো চীনে তাদের গাড়ি উৎপাদনের রাশ টানছে। চীনের মাটিতে দক্ষিণ কোরিয়া বিরোধী মনোভাবের উত্থানের মুখে এমন পদক্ষেপ নিয়েছে প্রতিষ্ঠানগুলো। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে চীনা ব্র্যান্ডগুলোর সঙ্গে কঠিন প্রতিযোগিতার বিষয়টি। হুন্দাই মোটর এবং কিয়া মোটরস-এর মতো কোম্পানিগুলো সম্প্রতি চীনে অতিমন্দার মুখে পড়েছে। আগের বছরের তুলনায় চলতি বছরের মার্চ নাগাদ চীনে যৌথভাবে এ দুই প্রতিষ্ঠানের বিক্রি কমেছে ৫২ শতাংশ। তবে এটা শুধু গাড়ি নির্মাতাদের ক্ষেত্রেই নয়; চীনের বাজারে অন্যান্য সামগ্রী সরবরাহকারী দক্ষিণ কোরীয়দেরও কমবেশি একই রকমের অভিজ্ঞতার মুখে পড়তে হচ্ছে।
এর আগে চলতি বছরের মার্চে যুক্তরাষ্ট্র-দ. কোরিয়ার যৌথ সামরিক মহড়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করে চীন। চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে বেইজিং-এর উদ্বেগের কথা জানান মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র গেং শুয়াং। তিনি বলেন, “এরইমধ্যে আমরা কূটনৈতিক চ্যানেলের মধ্যমে মহড়ার বিষয়ে আমাদের মারাত্মক উদ্বেগের কথা অপর পক্ষকে জানিয়েছি।” গেং শুয়াং বলেন, সব পক্ষের স্বার্থের জন্যই কোরীয় উপদ্বীপ এবং পূর্ব এশিয়ায় শান্তি ও স্থিতিশীলতা রক্ষা করা জরুরি। এজন্য সবার দায়িত্ব রয়েছে। উত্তর কোরিয়া যে পরমাণু ও ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি পরিচালনা করছে সে বিষয়ে এ মহড়ার মাধ্যমে দেশ দুটি পিয়ংইয়ংকে বিশেষ বার্তা দিতে চায় বলে মনে করা হচ্ছে। তবে চীন বলছে, এ ধরনের সামরিক মহড়া আঞ্চলিক স্থিতিশীলতার জন্য ক্ষতিকর। উত্তর কোরিয়ার পক্ষ থেকে ‘প্রয়োজনে শত্রুদেশ দক্ষিণ কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে পরমাণু হামলার’ হুমকি দেওয়া হয়েছে। আর চীনে দক্ষিণ কোরিয়ার বিরোধিতা বাড়তে থাকায় দেশটির বাজারে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন সিউলের বিনিয়োগকারীরা।
সূত্র: রয়টার্স, বিবিসি।

Leave a Reply