ফরিদপুর পৌরসভা ‘স্মার্ট সিটি পুরস্কার ২০১৭’-এ ভূষিত ॥ ভয়েস অব ফরিদপুর

ভয়েস অব ফরিদপুর রির্পোট ॥
ফরিদপুর পৌরসভার পরিবেশ, পরিবহন ও গতিশীলতা, পানি ও স্যানিটেশন, নগর শাসন, নির্মিত পরিবেশ, সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি এবং সংস্কৃতি ও অর্থনীতিতে ব্যাপক সাফল্য ও অগ্রগতি কারনে ফরিদপুর পৌরসভারকে স্মার্ট সিটি পুরস্কার ২০১৭’-এ ভূষিত করা হয়েছে। গত ৪ ডিসেম্বর ঢাকার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত ‘স্মার্ট সিটি উইক’ এর সমাপনী অনুষ্ঠানে ফরিদপুর পৌরসভাকে স্মার্ট সিটি ক্যাটাগরিতে ‘স্মার্ট সিটি পুরস্কার ২০১৭’ প্রদান করা হয়। ফরিদপুর পৌরসভা স্মার্ট সিটি পুরস্কার লাভ করায় মঙ্গলবার পৌরসভার কর্মকর্তা ও কর্মচারীগন সফল মেয়র শেখ মাহতাব আলী মেথুকে ফুল দিয়ে শুভেচছা জানান।
প্রযুক্তি বা অবকাঠামোর পাশাপাশি নগরবাসীর সচেতনতা, দায়িত্বশীলতাও যে আধুনিক বাসযোগ্য শহর গড়তে সমান গুরুত্বপূর্ণ সে বিষয়ে ব্যাপক জনসচেতনা তৈরী এবং মানবিক ও আধুনিক শহর বিনির্মাণে সম্মিলিত প্রয়াসকে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নভোথিয়েটারে গত ২৯ নভেম্বর ২০১৭ থেকে সপ্তাহব্যাপী ‘স্মার্ট সিটি ক্যাম্পেইন’ শুরু হয়। ক্যাম্পেইনে ‘স্মার্ট সিটি ইনোভেশন হাব’ এর তিন দিনব্যাপী একটি জাতীয় প্রদর্শণীর আয়োজন করা হয়। গত ৪ ডিসেম্বর ২০১৭ বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত ‘স্মার্ট সিটি উইক’ এর সমাপনী অনুষ্ঠানে ফরিদপুর পৌরসভাকে স্মার্ট সিটি ক্যাটাগরিতে ‘স্মার্ট সিটি পুরস্কার ২০১৭’ প্রদান করা হয়। ফরিদপুর পৌরসভার পক্ষ থেকে পৌরসভার শহর পরিকল্পনাবিদ মোঃ আবু বকর সিদ্দিক এ পুরস্কার গ্রহণ করেন।
প্রদর্শণীতে ২০৪০ সালের মধ্যে ফরিদপুর পৌরসভাকে স্মার্ট শহরের রূপান্তর করার লক্ষ্য নিয়ে স্মার্ট শহরের নির্দেশকসমূহ এবং বিভিন্ন নির্দেশকে ফরিদপুর পৌরসভার অগ্রগতি তুলে ধরা হয়। স্মার্ট শহর বিবেচনায় ফরিদপুর পৌরসভার অবস্থান নির্ণয়ের জন্য শহরের পরিবেশ, পরিবহন ও গতিশীলতা, পানি ও স্যানিটেশন, নগর শাসন, নির্মিত পরিবেশ, সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি এবং সংস্কৃতি ও অর্থনীতি – এই সাতটি নির্দেশক নির্ধারণ করা হয়। প্রতিটি নির্দেশকের বিভিন্ন উপাদানসমূহে ফরিদপুর পৌরসভার বর্তমান অগ্রগতি পোস্টারের মাধ্যমে উপস্থাপন করা হয়। এসব নির্দেশকের মধ্যে শহরের পরিবেশ, পানি ও স্যানিটেশন এবং নগর শাসনে ফরিদপুর পৌরসভার অবস্থান সবচেয়ে ভালো বলে শহর পরিকল্পনাবিদ জানান। মাননীয় মেয়র শেখ মাহ্তাব আলী মেথু জানান যে, ২০৪০ সালের মধ্যে স্মার্ট শহর গড়ার লক্ষ্যে অন্য নির্দেশকগুলোতেও গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো ‘স্মার্ট সিটি উইক ২০১৭’ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একসেস টু ইনফরমেশন প্রোগ্রাম (এটুআই) এবং ইউএনডিপি – এর মূল উদ্যোগে আয়োজিত হয়।

Leave a Reply