বাজেটে যেসব পণ্যের দাম বেড়েছে ও কমেছে

ভয়েস  ডেস্ক: এবার বাজেটে কয়েকটি পণ্যের শুল্ক, সম্পূরক শুল্ক ও রেগুলেটরি ডিউটি বাড়ানোর প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। ফলে সংশ্লিষ্ট পণ্যগুলোর দাম বাড়বে। একইসঙ্গে বেশ কিছু পণ্যের ওপর শুল্ক ও কর কমানোর কারণে এগুলোর দাম কমতে পারে।

অর্থমন্ত্রী নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দামের বিষয়টি মাথায় রেখে কর আরোপ করেছে। শুল্ক ও কর কমানোর কারণে যেসব পণ্যের দাম কমবে : সিরামিকস, ব্যাটারি, দেশীয় কম্পিউটার-ল্যাপটপ, দেশে তৈরি মোবাইল, পাঁচ হাজার লিটারের নিচের এলপিজি সিলিন্ডার। মৎস্য, পোলট্রি ও ডেইরির খাদ্য ও উপকরণ, আমদানি করা অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র, ওষুধ। ১৬০০ সিসি পর্যন্ত মোটরগাড়ি এবং হাইব্রিড গাড়ির। এ ছাড়া সার, বীজ ও কীটনাশকের দামও কমবে।

নতুন করে আমদানি শুল্ক, সম্পূরক শুল্ক এবং ভ্যাট আরোপ করায় যেসব পণ্যের দাম বাড়বে সেগুলোর মধ্যে হচ্ছে- আমদানি করা সোলার প্যানেল। বিভিন্ন ধরনের মসলা যেমন গোলমরিচ, দারুচিনি, এলাচ, জিরা, ফুড সাপ্লিমেন্ট, সালফিউরিক এসিড। আমদানি করা প্রসাধনী, সাবান, লোশন, সুগন্ধি, গ্লাস, স্টিলের টেবিল, কিচেনের পণ্যের দাম কিছুটা বাড়বে অটোরিকশা, থ্রি হুইলার, চার স্ট্রোক বিশিষ্ট সিএনজি অটোরিকশা, ব্যাটারিচালিত রিকশা, ১৬০০ সিসির ঊর্ধ্বে আমদানি করা গাড়ি এবং বিভিন্ন ধরনের মূলধনী যন্ত্রপাতি, আমদানি করা কৃষি যন্ত্রপাতি, তামাক ও তামাকজাত পণ্য। এ ছাড়া ফাস্ট ফুডের দাম আরেক দফায় বাড়ছে।

দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থার (সার্ক) আওতাভুক্ত দেশগুলোর বাইরে ভ্রমণের ক্ষেত্রে দেশ ভেদে আবগারি শুল্ক দিগুণ করে দুই হাজার ও তিন হাজার টাকা করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরের বাজেট উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। চার লাখ ২৬৬ কোটি এ বাজেটে প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৭ দশমিক ৪ শতাংশ। এতে উন্নয়ন ব্যয় এক লাখ ৫৯ হাজার ১৩ কোটি, অনুন্নয়ন রাজস্ব ব্যয় দুই লাখ সাত হাজার ১৩৮ কোটি টাকা ধরা হয়েছে।

বাজেটে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে এক লাখ ৫৩ হাজার ৩৩১ কোটি টাকা। গত অর্থবছরের বাজেটে এক লাখ ১০ হাজার ৭০০ কোটি টাকা।

 

Leave a Reply