মেয়াদোত্তীর্ণ ইনসুলিন ও ডিপ ফ্রিজে ওষুধের ঘটনা তদন্তে কমিটি

ভয়েস রিপোর্ট ঃ

গত বুধবার দুপুরে ফরিদপুর শহরের ঝিলটুলী মহল্লায় ডায়াবেটিক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের ফামের্সিতে অভিযান চালায় র‍্যাব। ফরিদপুর ডায়াবেটিক মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পরিচালিত ফার্মেসিতে মেয়াদোত্তীর্ণ ইনসুলিন, ডিপ ফ্রিজে ওষুধ, আবার সেই ওষুধের সঙ্গে পাওয়া আইসক্রিম এবং নিষিদ্ধ ভারতীয় সিরিঞ্জ রাখার ঘটনা তদন্তে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।  বৃহস্পতিবার বিকেলে সমিতির উদ্যোগে পাঁচ সদস্যের এ কমিটি গঠন করা হয়।

ফরিদপুর ডায়াবেটিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শেখ আবদুস সামাদ বলেছেন, কাল শনিবার থেকে কাজ করবে এ কমিটি। এই কমিটিকে পাঁচ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

ফার্মেসি থেকে ইনসুলিনসহ মেয়াদোত্তীর্ণ মোট ৩৩ রকমের ওষুধ জব্দ করা হয়। ছবি: সংগৃহীতসমিতির নির্বাহী কমিটির সদস্য মো. মুরাদ মিয়াকে এ কমিটির আহ্বায়ক ও হাসপাতালের পরিচালক মোসলেমউদ্দীনকে সদস্যসচিব করা হয়েছে। ওই হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক মাজেদুর রহমান এবং সমিতির নির্বাহী কমিটির সদস্য খন্দকার মফিজুর রহমান ও আলমগীর ভুইয়াকে সদস্য করা হয়েছে।

গত বুধবার দুপুরে ফরিদপুর শহরের ঝিলটুলী মহল্লায় অবস্থিত ডায়াবেটিক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ডায়াবেটিক কর্তৃপক্ষের নিজস্ব তত্ত্বাবধানে পরিচালিত ফামের্সিতে অভিযান চালায় র্যাব-৮ ফরিদপুর ক্যাম্পের একটি দল। ওই সময় সেখান থেকে ইনসুলিনসহ মেয়াদোত্তীর্ণ মোট ৩৩ রকমের ওষুধ জব্দ করা হয়। এ ছাড়া ডিপ ফ্রিজে কোনো ওষুধ রাখার নিয়ম না থাকলেও ডিপ ফ্রিজে ওষুধ ও ওষুধের সঙ্গে আইসক্রিমও পাওয়া যায়। এমনকি ফার্মেসি থেকে বিপুল পরিমাণ ভারতীয় সিরিঞ্জ (যা বাংলাদেশে নিষিদ্ধ) জব্দ করা হয়।

ফরিদপুর ডায়াবেটিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শেখ আবদুস সামাদ বলেন, এ ঘটনায় ওই ফার্মেসির সঙ্গে জড়িত এক ফার্মাসিস্ট ও চার বিক্রয়কর্মীকে ‘কেন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না’-মর্মে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply