‘নারীকে অবহেলা করে কোন দেশ উন্নতি করতে পারেনি’-ফরিদপুরে খন্দকার মোশাররফ

মাহবুব পিয়াল,ভয়েস অব ফরিদপুর নিউজ ॥ স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় বিষয়ক স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপি বলেছেন , নারীকে অবহেলা করে কোন দেশ উন্নত করতে পারেনি। দেশের জন্মলগ্ন থেকেই বাংলাদেশের সংবিধানে ধর্ম এবং নারী-পুরুষের সমতা দিয়েছে। আজ দেশের উন্নতির স্বার্থে সৌদি আরবেও নারীকে গাড়ি চালানোর অনুমতি দেওয়া হয়েছে।
ফরিদপুরে এক নারী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য দিতে গিয়ে এ কথাগুলি বলেন খন্দকার মোশাররফ। আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে জেলা প্রশাসন ও জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উদ্যোগে সমাবেশের আয়োজন করা হয়।
রবিবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে ফরিদপুর শহরের কবি জসীম উদ্দীন হলে ‘প্রজন্ম হোক সমতার, সকল নারীর অধিকার’ এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে এ নারী সমাবেশের আয়োজন করা হয়।
খন্দকার মোশাররফ হোসেন আরও বলেন, বাংলাদেশে নারীর ক্ষমতায়ন উল্লেখযোগ্য মাত্রায় অর্জিত হয়েছে। নারীর এ ক্ষমতায়নকে এমন এক পর্যায়ে নিয়ে যেতে হবে, যাতে এক পর্যায়ে পুরুষ বলতে বাধ্য হবে, ‘আপনাদের পাশে আমাদের জায়গা দিন’।
তিনি বলেন, বাংলাদেশের সংবিধানে হিন্দু মুসলমান কিংবা নারী বা পুরুষের কোন ভেদাভেদ করেনি। সংবিধান সকলের অধিকারের সমান মর্যাদা দিয়েছে। এদেশে হিন্দু বা মুসলিম, নারী বা পুরুষের কোন ভোদাভেদ নেই।
মায়েদের উদ্দেশ্যে খন্দকার মোশাররফ বলেন, নারী ও পুরুষের সমতা প্রতিটি বাড়িতে নিশ্চিত করতে হবে। মায়েরা শুধু ছেলেদের ভালো খাবার দেন, এ মানসিকতা বাদ দিতে হবে। পারিবারিক সমতা অর্জিত হলে সমাজের যত অসংগতি দ্রুত কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হবে।
তিনি বলেন, নারীকে অবহেলা বা উপেক্ষা করে কোন দেশ উন্নত হতে পারেনি। সৌদি আরবের মত দেশে আজ নারীকে গাড়ি চালনোর অনুমতি দেওয়া হয়েছে। নারীরা আজ সেখানে ট্যাক্সি চালিয়ে নিজের উপার্জন করতে পারছে।
খন্দকার মোশাররফ বলেন, বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নারীর ক্ষমায়তনের জন্য যুগান্তকরি সব পদক্ষেপ নিয়েছেন। প্রশাসনে এমন কোন উঁচু জায়গা নেই যেখানে নারীকে জায়গা দেওয়া হয়নি। এজন্য শেখ হাসিনার প্রতি আমাদের কৃতজ্ঞতার শেষ নেই।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার। শুরুতে স্বাগত বক্তব্য দেন জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মাশউদা হোসেন।
অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন পুলিশ সুপার মো. আলিমুজ্জামান, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুর রশিদ, ফরিদপুর পৌরসভার মেয়র শেখ মাহাতাব আলী মেথু, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুবল চন্দ্র সাহা, জেলা আ.লীগের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ঝর্ণা হাসান, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ ফরিদপুর শাখার সভাপতি শিপ্রা রায়, নারীনেত্রী আসমা আক্তার মুক্তা, শহর আ.লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক জেসমিন ফেরদৌসি প্রমুখ।

Leave a Reply