ফরিদপুরে নার্স অনিমা হত্যার দায়ে জড়িত থাকার অভিযোগে দুই ছিনতাইকারী গ্রেফতার ॥ভয়েস অব ফরিদপুর

ভয়েস অব ফরিদপুর রির্পোট ॥
ফরিদপুর শহরে ছিনতাইকালে রিকশা থেকে পড়ে নার্স অনিমা ভৌমিক নিহত হওয়ার ঘটনায় দায়ের করা মামলার দুই আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত দু’জন হলেন শরীফুল ইসলাম শরীফ (৩৫) ও হাবিবুর রহমান টিটু (২২)।
এসময় গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে নিহত অনিমার মোবাইল ফোন, ছিনতাইয়ে ব্যবহৃত মটরসাইকেল ও পোশাক উদ্ধার করা হয়েছে।
আজ রবিবার দুপুর ১২ টায় ফরিদপুরের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার জামাল পাশা কোতোয়ালি থানায় এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান।
গত ১৭ ফেব্রুয়ারী ছিনতাইকালে অনিমা আহত হয়ে ২২ ফেব্রুয়ারী চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়ার পর গত শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী রাতে নিহতের ভাই বিধান ভৌমিক বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা (তদন্ত) বিপুল কুমার দে বলেন, ছিনতাইয়ের ঘটনার পর থেকেই পুলিশ ভিডিও ফুটেজ দেখে সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের ধরতে তৎপর ছিল। শনিবার রাতে অভিযান চালিয়ে মামলার প্রধান আসামি শরীফকে তার শ্বশুর বাড়ি আলফাডাঙ্গা থেকে গ্রেফতার করা হয়। তার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী সঙ্গী টিটুকে শহরের মোল্যা বাড়ি সড়ক থেকে আটক করা হয়।
শরীফ শহরতলীর রঘুনন্দনপুর গ্রামের ফল ব্যবসায়ী ফারুক শেখের ছেলে। তার বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় দু’টি ডাকাতি, একটি হত্যা ও একটি মাদক মামলা রয়েছে। টিটু শহরতলীর মুন্সিবাজার এলাকার মৃত সামাদ মাতুব্বরের ছেলে। তারা শহরের গোয়ালচামট মোল্যা বাড়ি সড়কের একটি বাড়ির ভাড়াটিয়া।
গত ১৭ ফেব্রুয়ারি সকালে অনিমা শহরের ঝিলটুলীর জুবলী ট্যাংকের মোড়ের বাসা থেকে রিকশাযোগে তার কর্মস্থলে যাওয়ার জন্য রওয়ানা দেন। হাসপাতালে যাওয়ার পথে ছিনতাইকারীদের কবলে পড়ে গুরুতর আহত হন তিনি। ৫ দিন রাজধানীর নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয় তাকে। কিন্তু বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারি সকাল সাড়ে ৯টার দিকে তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়।
অনিমা ভৌমিক ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (ফমেক) সিনিয়র স্টাফ নার্স এবং এই হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. নৃপেন্দ্র নাথ বিশ্বাসের স্ত্রী ও দুই সন্তানের জননী।
দীর্ঘদিন ওই দম্পতি ফরিদপুরে চাকরির সূত্রে ঝিলটুলীর জুবলী ট্যাংকের মোড়ে নিজেদের একটি বাসায় বসবাস করছেন।

Leave a Reply