ফরিদপুর মেডিকেল কলেজে মরেণোত্তর দেহদান করলেন ব্লাস্ট এর দুই নারী কর্মকর্তা॥ ভয়েস অব ফরিদপুর

ভয়েস অব ফরিদপুর রির্পোট ॥ ফরিদপুর মেডিকেল কলেজে মরেণোত্তর দেহদান করেছেন বাংলাদেশে লিগ্যাল এইড এন্ড সার্ভিসেস ট্রাস্ট (ব্লাস্ট) এর দুই নারী কর্মকর্তা।
আজ মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে ওই দুই কর্মকর্তা মেডিকেল কলেজে গিয়ে কলেজের অধ্যক্ষ এস এম খবিরুল ইসলামের কাছে দেহদান সংক্রান্ত দুটি এফিডেভিট তুলে দেন। এ সময় ওই দুই নারীকে ফুলের তোড়া দিয়ে স্বাগত জানানো হয়।
ব্লাস্টের ওই দুই কর্মকর্তা হলেন ব্লাস্ট ফরিদপুর কার্যালয়ের সমন্বয়কারী শিপ্রা গোশ্বামী (৫১) ও ব্লাস্টের শালিশ কর্মকর্তা অর্চনা দাস (৪৬)।
শিপ্রা গোশ্বামী শহরের খ্রীস্টান মিশন মহল্লা বাসিন্দা সাবেক উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সুনীল চক্রবর্ত্তীর স্ত্রী। তিনি দুই ছেলের মা। অপরদিকে অর্চনা দাস জেলা ক্রিড়া সংস্থার নির্বাহী কমিটির সদস্য প্রনব মুখোপাধ্যায় এর স্ত্রী । তিনি এক ছেলে ও এক মেয়ের মা।
শিপ্রা গোশ্বামী জানান, আমরা জানতে পেরেছি লাশের অভাবে মেডিকেল কলেজের এনাটমি বিভাগের শিক্ষার্থীদের পড়া লেখা ব্যহত হচ্ছে। এজন্য মেডিকেল শিক্ষার্থীদের পড়াশুনার সুবিধার জন্য আমরা ব্লাস্টের দুই কর্মকর্তা মরনোত্তর দেহ দানে উৎসাহিত হয়েছি। মৃত্যুর পর আমাদের দেহ শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার কাজে লাগবে এটাই আমাদের আনন্দ।
কলেজের অধ্যক্ষ এস এম খবিরুল ইসলাম বলেন, মরণোত্তর দেহ দিতে দেশের মানুষ এভাবে এগিয়ে আসলে মেডিকেল শিক্ষার্থীদের লাশ নিয়ে সংকট দূর হবে। তিনি বলেন, এ ঘটনায় অন্যরাও উৎসাহিত হবেন বলে আমার বিশ্বাস।
প্রসংগত গত ১০ ফেব্রুযারি মাগুরা সদর উপজেলার পশ্চিম রামনগর গ্রামের বাসিন্দা হাট গোপালপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক গোলাম খবির (৮২) ও একই উপজেলার ব্যাঙা বিরইল গ্রামের হোমিও চিকিৎসক বীরেন্দ্রনাথ বিশ্বাস (৬৪) ফরিদপুর মেডিকেল কলেজে মরণোত্তর দেহ দান করেন।

Leave a Reply