ফরিদপুর শহর রক্ষাবাঁধে আবারও ভাঙ্গন ॥ বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

মাহবুব পিয়াল,ভয়েস অব ফরিদপুর নিউজ ॥ দিন দিন অবনতির দিকে যাচ্ছে ফরিদপুরের বন্যা পরিস্থিতি। গত ২৪ ঘন্টায় ফরিদপুরের পদ্মার পানি ৩ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ১১৮ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এর ভিতর সোমবার বিকেলে ৪ টার দিকে দ্বিতীয় দফায় পানির চাপে ভেঙে গেছে সদর উপজেলার আলিয়াবাদ ইউনিয়নের সাদিপুর এলাকার শহর রক্ষা বাঁধটি। বাঁধটি শহরতলীর সাদিপুর ও বায়তুল আমান সংযোগ সড়ক হিসেবে ব্যবহৃত হয়।
এর আগে গত ১৯ জুলাই পানির প্রবল চাপে বাঁধটি ভেঙ্গে গিয়ে ছিলো। পরে ফরিদপুর পানি উন্নয়ন বোর্ড ৪৮ ঘন্টার মধ্যে বাঁধটি মেরামত করে।
এদিকে বাঁধ ভাঙ্গার খবর পাওয়ার সাথে সাথে ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার, পুলিশ সুপার মোঃ আলিমুজ্জামান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(সদর সার্কেল) মোঃ রাশেদুল ইসলাম, ফরিদপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ সুলতান মাহমুদ ও সদর উপজেলা নির্বাহী মোঃ মাসুম রেজা সহ প্রশাসনের উদ্বর্তন কর্মকর্তাবৃন্দ বাঁধ এলাকাটি পরিদর্শন করেছেন।
এ বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(সদর সার্কেল) মোঃ রাশেদুল ইসলাম বলেন, খবর পাওয়ার সাথে এসপি স্যার সহ আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। বাঁধটি পূর্ন নির্মান না হওয়া পর্যন্ত ওই এলাকায় সাধারনের প্রবেশ নিষেধ করা হয়েছে। একই সাথে সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রাখা হবে এখন থেকে।
ফরিদপুর জেলা প্রশাসক অতুল সরকার জানান, দ্বিতীয় দফায় পদ্মা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে জেলার সাতটি উপজেলার ৫৪১ গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এতে প্রায় দুই লক্ষাধীক মানুষ পানিবন্দি। আমরা সরকারের পক্ষ থেকে ৩৬০ মেট্রিকটন চাল ও নগদ সাত লক্ষ টাকা বরাদ্দ দিয়েছি। প্রয়োজনে আরো দেওয়া হবে। তিনি বলেন দ্বিতীয় দফায় ভেঙ্গে গেছে বাঁধটি। পানি উন্নয়ন র্বোডের সাথে কথা বলে অতি দ্রুত বাঁধ মেরামতে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
ফরিদপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সুলতান মাহমুদ জানান, বর্তমানে পদ্মার পানি গোয়ালন্দ পয়েন্টে ১১৮ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এর ফলে প্রতিদিনই নতুন নতুন এলাকায় পানি প্রবেশ করেছে। তিনি জানান, শহর বন্যা প্রতিরক্ষা বাঁধের আলিয়াবাদে প্রায় ১০০ ফিটের মত জায়গা ধ্বসে গেছে দ্বিতীয় দফায়। সোমবার বিকেল ৪ টার দিকে এই ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাগন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। তিনি বলেন পানির যে চাপ রয়েছে এই মূহুর্তে বাঁধটি পূর্ন নির্মান করা দুরুহ ব্যাপার।

Leave a Reply